Hawker.com.bd     SINCE
 
 
 
 
ইফকো গার্মেন্টসের বিরুদ্ধে আল-আরাফাহ্ ব্যাংকের মামলা [ শেষের পাতা ] 12/01/2017
৬২ কোটি টাকা পাওনা পরিশোধে ব্যর্থতা
ইফকো গার্মেন্টসের বিরুদ্ধে আল-আরাফাহ্ ব্যাংকের মামলা
ওমর ফারুক :

চট্টগ্রামভিত্তিক তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ইফকো গার্মেন্টস অ্যান্ড টেক্সটাইলস লিমিটেড। রফতানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠান হিসেবে আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড থেকে ঋণ সুবিধা গ্রহণ করে তারা। কিন্তু উত্পাদিত পোশাক রফতানিতে মুনাফা করলেও ব্যাংকের ঋণ পরিশোধ করেনি প্রতিষ্ঠানটি। বারবার তাগাদার পরও ঋণের ৬২ কোটি টাকা পরিশোধ না করায় প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে মামলা করেছে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক।

গতকাল চট্টগ্রাম অর্থঋণ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ আবু হান্নান মামলাটি গ্রহণ করে আদেশের জন্য রেখেছেন।

আদালত সূত্র জানায়, আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংকের দায়ের করা মামলায় ইফকো গার্মেন্টস অ্যান্ড টেক্সটাইলসহ ছয়জনকে বিবাদী করা হয়েছে। এরা হলেন— প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ সিদ্দিক, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মোরশেদ, পরিচালক মো. শাহেদ, মো. সোলায়মান ও মো. নুরুল হুদা।

আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংকের চট্টগ্রাম আগ্রাবাদ শাখার সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ আমিনুর রহমান অর্থঋণ আদালতে এ মামলা করেন।

মোহাম্মদ আমিনুর রহমান এ বিষয়েবণিক বার্তাকে বলেন, কালুরঘাট শিল্প এলাকার ইফকো গার্মেন্টস প্রতিষ্ঠান প্রি-শিপমেন্ট ও ব্যাক টু ব্যাক এলসি হিসেবে ব্যাংক থেকে এ ঋণ সুবিধা গ্রহণ করে। কিন্তু পণ্য রফতানি করেও তারা ব্যাংকের টাকা ফেরত দেয়নি। এ অর্থ উদ্ধারে বিভিন্নভাবে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালকদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। বারবার তাগাদা সত্ত্বেও প্রতিষ্ঠানটি টাকা ফেরত না দেয়ায় অর্থঋণ আদালতে মামলা করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি গার্মেন্টস খাতে বিনিয়োগের জন্য ঋণ সুবিধা গ্রহণ করলেও পরে ঋণের টাকা অন্য খাতে স্থানান্তর করেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ব্যাংকের ঋণ পরিশোধ না করে কয়েক মাস ধরে উত্পাদন বন্ধ রেখেছে ইফকো গার্মেন্টস অ্যান্ড টেক্সটাইল লিমিটেড। চট্টগ্রামের কালুরঘাট শিল্প এলাকায় ছয়তলা ভবনে প্রতিষ্ঠানটির কারখানা ছিল। কয়েক মাস আগে রাতের আঁধারে কারখানার যন্ত্রপাতিও সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

ঋণ প্রদানকারী ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, প্রতিষ্ঠানটি প্রথম দিকে পোশাক রফতানি করে মুনাফাও পায়। তবে পরে পোশাক তৈরির জন্য আমদানি করা কাঁচাপণ্য বাইরে বিক্রি করে দেয়ার অভিযোগ রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে। কারখানা বন্ধের পর থেকে গা-ঢাকা দিয়েছেন ইফকো গার্মেন্টসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মোরশেদসহ পরিচালকরা।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে ইফকো গার্মেন্টসের চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ সিদ্দিক (নওশাদ) বলেন, সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের কর্মকর্তা ও গার্মেন্টসের কয়েকজন পরিচালক মিলে এ টাকা আত্মসাত্ করেছেন।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, চট্টগ্রামের কালুরঘাট শিল্প এলাকার ইফকো গার্মেন্টস অ্যান্ড টেক্সটাইল ২০১০ সালে আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক আগ্রাবাদ করপোরেট শাখা থেকে ৪৭ কোটি ৫৭ লাখ ৭৯ হাজার ৯৫৭ টাকা ঋণ সুবিধা গ্রহণ করে। গত বছরের ডিসেম্বরে সুদাসলে পাওনা দাঁড়ায় ৭৬ কোটি ৭১ লাখ ৫৪ হাজার ৫৩০ টাকা ৫ পয়সা। এর মধ্যে ইফকো গার্মেন্টস ১৪ কোটি ৩৩ লাখ ৯৫ হাজার ৯০৭ টাকা ২০ পয়সা পরিশোধ করে। সর্বশেষ গত ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানের কাছে ব্যাংকের ৬২ কোটি ৩৯ লাখ ৪৯ হাজার ৮৯৩ টাকা ৮৫ পয়সা পাওনা রয়েছে।

আল-আরাফাহ্ ব্যাংকের পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী আইনজীবী জিয়া হাবিব আহসান বলেন, ঋণ সুবিধা গ্রহণ করলেও প্রতিষ্ঠানটি দীর্ঘদিন ধরে ব্যাংকের টাকা পরিশোধ করছে না। বারবার আইনগতভাবে তাগাদা দেয়ার পরও ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে মামলা করেছে পাওনাদার ব্যাংক। অর্থঋণ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ আবু হান্নান মামলাটি গ্রহণ করে আদেশের জন্য রেখেছেন।
News Source
 
 
 
 
Today's Other News
More
Related Stories
 
Forward to Friend Print Close Add to Archive Personal Archive  
Forward to Friend Print Close Add to Archive Personal Archive  
 
 
Home / About Us / Benifits / Invite a Friend / Policy
Copyright © Hawker 2013-2012, Allright Reserved
free counters