সপ্তাহের শুরুতেই পুঁজিবাজারে মন্দা [ অর্থ-বাণিজ্য ] 19/06/2017
ব্যাংক হিসাব জব্দ : আইসিবির আপিল
সপ্তাহের শুরুতেই পুঁজিবাজারে মন্দা
নতুন সপ্তাহের শুরুতে ফের মন্দায় আক্রান্ত হয়েছে পুঁজিবাজার। গতকাল দেশের দুই পুঁজিবাজারেই সূচকের অবনতি ঘটে। কমেছে বাজারগুলোর লেনদেনও। দিনের শুরুতে বিক্রয়চাপের মুখে পড়া দুই পুঁজিবাজার দিনশেষে হারানো সূচক আর ফিরে পায়নি। উভয় বাজারেই লেনদেন হওয়া কোম্পানির বেশির ভাগই দরপতনের শিকার হয়।
ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স গতকাল ৬ দশমিক ৬৯ পয়েন্ট হ্রাস পায়। ডিএসই-৩০ ও শরিয়াহ সূচক হারায় যথাক্রমে ১ দশমিক ৩৪ ও ০ দশমিক ২৭ পয়েন্ট। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক ও সিএসসিএক্স সূচকের অবনতি ঘটে যথাক্রমে ১৫ দশমিক ৫৬ ও ১১ দশমিক ৮৩ পয়েন্ট। এখানে সিএসই শরিয়াহ সূচকের অবনতি ঘটে ২ দশমিক ১০ পয়েন্ট।
সূচকের অবনতির প্রভাব ছিল দিনের লেনদেনেও। ঢাকা শেয়ারবাজারে গতকাল ৪৭৩ কোটি টাকার লেনদেন নিষ্পত্তি হয়, যা আগের দিন অপেক্ষা ৫৭ কোটি টাকা কম। গত বৃহস্পতিবার ডিএসইর লেনদেন ছিল ৫৩০ কোটি টাকা। চট্টগ্রাম শেয়ারবাজারে ২৯ কোটি টাকা থেকে ২৫ কোটিতে নেমে আসে লেনদেন।
গতকাল লেনদেনের শুরুতেই বিক্রয়চাপের মুখে পড়ে দুই পুঁজিবাজার। ঢাকায় ডিএসইর প্রধান সূচকটি পাঁচ হাজার ৪৬৮ দশমিক ৩৩ পয়েন্ট থেকে লেনদেন শুরু করলেও দুপুর ১২টার দিকে সূচকটি নেমে আসে পাঁচ হাজার ৪৫৭ পয়েন্টে। এভাবে প্রথম দুই ঘণ্টায় সূচকের ১১ পয়েন্টের বেশি হারায় ডিএসই। তবে দিনের শেষ ভাগে হারানো সূচকের একটি অংশ ফিরে পায় পুঁজিবাজারটি। দিনশেষে পাঁচ হাজার ৪৬১ দশমিক ৬৩ পয়েন্টে স্থির হয়।
গতকাল দুই বাজারেই বেশির ভাগ খাতে দরপতন ঘটে। কিছুটা ভালো অবস্থানে ছিল ব্যাংক, প্রকৌশল ও বীমা খাত। বিপরীতে বড় রকম দরপতনের মুখে পড়ে সিরামিকস, নন ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান, পাট, খাদ্য, জ্বালানি, চামড়া ও রসায়ন খাত। মিশ্র প্রবণতা দেখা গেছে সিমেন্ট, তথ্য প্রযুক্তি, সেবা ও বিবিধ খাতে। ঢাকা শেয়ারবাজারে লেনদেন হওয়া ৩২৮টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে ১০১টির মূল্যবৃদ্ধির বিপরীতে দর হারায় ১৭৬টি। অপরিবর্তিত ছিল ৫১টির দর। অন্য দিকে চট্টগ্রামে লেনদেন হওয়া ২৩০টি সিকিউরিটিজের মধ্যে ৭৪টির দাম বাড়ে, ১২০টির কমে এবং ৩৬টির দর অপরিবর্তিত থাকে।
ঢাকায় গতকালও লেনদেনের শীর্ষ স্থানটি দখলে রাখে প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল। ২৩ কোটি ১৫ লাখ টাকায় কোম্পানিটির ৬১ লাখ ৩০ হাজার শেয়ার হাতবদল হয়। ১৮ কোটি সাত লাখ টাকায় ৪৬ লাখ ৮০ হাজার শেয়ার লেনদেন করে একই খাতের আরগন ডেনিমস ছিল দিনের দ্বিতীয় কোম্পানি। ডিএসইর লেনদেনের শীর্ষ দশ কোম্পানির অন্যগুলো ছিল যথাক্রমে রিজেন্ট টেক্সটাইল, নুরানি ডাইং, সাইফ পাওয়ারটেক, বিডি ফিন্যান্স, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন, লঙ্কা বাংলা ফিন্যান্স, তশরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ ও বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন।
এদিকে ব্যাংক হিসাব জব্দ করার পরিপ্রেেিত কর-বিরোধ নিরসনে জরুরি উদ্যোগ নিয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবির) দুই সহযোগী প্রতিষ্ঠান আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড ও আইসিবি সিকিউরিটিজ ট্রেডিং কোম্পানি লিমিটেড। এর অংশ হিসেবে কর আপিল ট্রাইব্যুনালে গতকাল রোববার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) দাবির বিরুদ্ধে আপিল করেছে কোম্পানি দু’টি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।
এর আগে বকেয়া করের দায়ে গত বৃহস্পতিবার এনবিআরের বৃহৎ করদাতা ইউনিট-এলটিইউ কোম্পানি দু’টির ব্যাংক হিসাব জব্ধ করে। এনবিআরের দাবি, দীর্ঘ দিন ধরে কোম্পানি দু’টির কাছে ১৩০ কোটি টাকার কর বকেয়া রয়েছে। কিন্তু তারা তা পরিশোধ করছে না। এর মধ্যে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্টের কাছে এনবিআরের পাওনা ৭৮ কোটি টাকা; আর আইসিবি সিকিউরিটিজ ট্রেডিং কোম্পানির কাছে ৫২ কোটি টাকা।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্টের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সোহেল রানা নয়া দিগন্তকে জানান, ভুল বুঝাবুঝি থেকে ঘটনাটি ঘটেছে। যে বকেয়া করের কথা বলা হচ্ছে তা ২০০৩-০৪ অর্থবছরের।
তিনি বলেন, ওই সময়ে সব বিনিয়োগকারীর েেত্র মূলধনী মুনাফা ছিল করমুক্ত। এনবিআর আমাদের কাছে যে ৭৮ কোটি টাকার কর বকেয়া রয়েছে বলে দাবি করছে, তার মধ্যে ৬০ কোটি টাকা ধরেছে মূলধনী মুনাফা হিসাবে। যেহেতু ওই সময়ে মূলধনী মুনাফা কর প্রযোজ্য ছিল না, তাই করের হিসাবটা সঠিক নয়।
সোহেল রানা আরো বলেন, গত বৃহস্পতিবারই আমরা বিষয়টি জেনেছি। কিন্তু সেদিন আপিল করার মতো সময় না থাকায় সেটি করা যায়নি। আজ আপিল করা হয়েছে। নিয়ম অনুসারে এনবিআরের দাবিকৃত বকেয়া করের ৩ শতাংশ পরিশোধ করে আপিল করতে হয়। আমরা তা জমা দিয়েছি।
তিনি আশা প্রকাশ করেন, দ্রুতই এ জটিলতার অবসান ঘটবে।
 
 
Forward to Friend Print Close Add to Archive Personal Archive  
Forward to Friend Print Close Add to Archive Personal Archive  
Today's Other News
• ডিএসইতে লেনদেন ৪০০ কোটির ঘরে
More
Related Stories
News Source Link
            Top
            Top
 
Home / About Us / Benifits / Invite a Friend / Policy
Copyright © Hawker 2013-2012, Allright Reserved
free counters