[ ] 02/03/2017
 
শীতে বাতের ব্যথায় মুক্তির উপায়
শীত আসার সঙ্গে সঙ্গে রোগের প্রকোপও বেড়ে যায়। বিশেষ করে যাদের হাঁটু বা কোমরের পুরনো বাতের ব্যথা মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। ঠাণ্ডায় মাংসপেশি সংকুচিত হওয়ায় এমনটা ঘটে। এমনকি টেন্ডন ও লিগামেন্ট সংকুচিত হয়। নরম কোষগুলোর এই যৌথ সংকোচনে বিগড়ে যায় বন্ধনীর বিন্যাস। এতে বেশি করে বন্ধনী আক্রান্ত হয়। তা ছাড়া শীতে আমাদের নড়াচড়াও কম হয়। এসবের কারণে হাঁটু আর কোমরের বাতের ব্যথা বাড়ে। তবে সাধারণত বাত বা অন্য যেকোনো বাতের ব্যথা হোক নির্দিষ্ট কিছু ব্যায়ামে কষ্ট অনেকটা লাঘব হয়।

শক্তি বাড়ানোর ব্যায়াম অথবা ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য ওয়ার্ক আউট যেটাই করুন না কেন, শুরুতেই অল্প করে শরীর গরম করে নেওয়া ভালো। যেমন, সিঁড়ি বেয়ে দু-চারবার ওঠানামা করুন। ঘরে দ্রুত পাঁচ মিনিট হেঁটে নেওয়া যেতে পারে। অথবা গানের তালে তালে পা মিলিয়েও শরীর গরম করা যেতে পারে। এর ফলে মাংসপেশিতে রক্তের সঞ্চালন বেড়ে শরীরের কোর তাপমাত্রা বাড়ে। এবার শুরু করুন কয়েকটি স্ট্রেচিং, যা মাংসপেশির স্বাভাবিক দৈর্ঘ্য ফিরিয়ে দেবে।

কোয়াড্রিসেপ মাংসপেশির স্ট্রেচ : পাশাপাশি শুয়ে একটি হাঁটু ভাঁজ করুন। ভাঁজ করা পায়ের চেটো হাত দিয়ে কোমরের দিকে টানতে হবে। যত নমনীয়তা, তত বল প্রয়োগ করতে হবে। ১০-৩৫ সেকেন্ড ধরে রেখে পা ছেড়ে দিতে হবে। এবার অন্য পায়ে একই অনুশীলন করুন। এভাবে প্রত্যেক পা তিনবার করে স্ট্রেচ করতে হবে।

হ্যামস্ট্রিং স্ট্রেচ : অনুশীলনটির জন্য একটি দড়ি প্রয়োজন। চিত হয়ে এক পায়ে দড়িটি আটকে নিতে হবে। অন্য পা ভাঁজ করে রাখতে হবে। এবার দড়ি ধরে টেনে পা-টি সোজা করে নিজের শরীরের দিকে আনতে হবে। এখানেও নিজের নমনীয়তা অনুযায়ী টানতে হবে। শেষ যেখানে পৌঁছাতে পারবেন সেখানে ১০ থেকে ১৫ সেকেন্ড ধরে রাখুন। এবার অন্য পায়ে অনুশীলনটি করতে হবে। অনুশীলনের জন্য দড়ি প্রয়োজনই হবে এমনটা ভাববার কোনো কারণ নেই। অনেক সময় হাত দিয়ে পা ধরাটা কঠিন হয়ে পড়ে, তাই এ দড়ির ব্যবস্থা।

সতর্কতা : ব্যথা খুব বেশি হলে স্ট্রেচ করা যাবে না। সে ক্ষেত্রে কয়েক দিন ওয়ার্ক আউট করার পর স্ট্রেচিংয়ের দিকে মনোযোগী হওয়া ভালো।