[ ] 17/04/2017
 
আরেকটি স্বর্ণপদক পাচ্ছেন জেসিকা
ইতোমধ্যেই অবসর নিয়েছেন। লন্ডন অলিম্পিকে ট্র্যাক এ্যান্ড ফিল্ডে একটি স্বর্ণপদকও জিতেছেন। হেপ্টাথলনের সম্রাজ্ঞী হিসেবে বিবেচিত জেসিকা এ্যানিস হিল বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপসেও দুটি স্বর্ণ জয় করেন। এবার আরেকটি স্বর্ণপদক যোগ হচ্ছে তার ক্যারিয়ারে। ২০১১ সালের দেগু বিশ্ব আসরে হেপ্টাথলনের স্বর্ণ জিতেছিলেন তাতিয়ানা চেরনোভা। কিন্তু ডোপ টেস্টে পজিটিভ হওয়ার কারণে রাশিয়ান এ তরুণীর পদক কেড়ে নেয়া হয়েছে। ফলে দেগুতে রৌপ্যজয়ী জেসিকা এবার স্বর্ণপদক পাচ্ছেন। অচিরেই তার কাছে এ পদক হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ গণমাধ্যম।

উজ্জ্বল একটা ক্যারিয়ার কাটিয়েছেন ৩১ বছর বয়সী জেসিকা। বহুমাত্রিক ক্রীড়ায় তিনি ব্রিটিশ ইতিহাসে সেরা এ্যাথলেট। কারণ একাধারে ১০০ মিটার হার্ডলস, হাইজাম্প ও ইনডোর পেন্টাথলনের জাতীয় রেকর্ড গড়েছিলেন। সেসব এখন অন্যের দখলে চলে গেলেও জেসিকার হেপ্টাথলনে গড়া জাতীয় রেকর্ড এখনও অমলিন। তবে ক্যারিয়ারের সেরা সাফল্য তিনি অর্জন করেন ২০১২ সালের লন্ডন অলিম্পিকে। জয় করেন প্রথম অলিম্পিক স্বর্ণ। যে ক্রীড়ায় তিনি সিদ্ধহস্ত সেই হেপ্টাথলনেই নিজের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করে স্বর্ণালী সাফল্য অর্জন করেন। অবশ্য গত বছর রিও ডি জেনিরো অলিম্পিকে আর সেটা ধরে রাখতে পারেননি, জিতেছেন রৌপ্য। মূলত ১০০ মিটার হার্ডলস দিয়ে শুরু করলেও আন্তর্জাতিক কোন আসরে এই ইভেন্টে বড় কোন সাফল্য পাননি। আর মাত্র ৪ বছর বয়সে যখন খেলাধুলার প্রতি ঝুঁকেছেন সে সময় তিনি হাইজাম্প ও পেন্টাথলনে প্রাইমারী পর্যায়ের শিক্ষা জীবন পর্যন্ত সিদ্ধহস্ত হয়ে যান। পরবর্তীতে বহুমাত্রিক ক্রীড়ায় মনোনিবেশ করেন জেসিকা। বহুমাত্রিক ক্রীড়ায় আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে প্রবেশের পরই সাফল্য পান জেসিকা। ২০০৯ সালে বার্লিনে অনুষ্ঠিত হয় বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপস। সে আসরে ক্যারিয়ারের প্রথম সেরা সাফল্য হিসেবে জয় করে হেপ্টাথলনে স্বর্ণপদক। পরের বছর বার্সিলোনায় অনুষ্ঠিত ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপসের হেপ্টাথলনেও চ্যাম্পিয়ন হন তিনি। একই বছর বিশ্ব ইনডোর চ্যাম্পিয়নশিপসে দোহা জয় করেন পেন্টাথলনে। টানা দুই বছর দুর্দান্ত সাফল্য অর্জন করেছিলেন। কিন্তু ২০১১ সালে এসে সেটা ধরে রাখতে পারেননি জেসিকা। একটিও স্বর্ণপদক আসেনি। তবে দেগু বিশ্ব আসরে জিতেছিলেন রৌপ্য। ২০১৩, ২০১৪ ও ২০১৫ গেছে আরও বাজে। কোন পদকই নেই। কিন্তু গত বছর রিও অলিম্পিকে নতুন করে নিজেকে ফিরে পেয়েছেন। এবার তিনি রৌপ্য জয় করেন। ক্যারিয়ারের ইতি টানেন তারপরই। কিন্তু অবসর নেয়ার পর আরেকটি স্বর্ণপদক পাচ্ছেন তিনি। রাশিয়ান বহুমাত্রিক এ্যাথলেট তাতিয়ানার কাছে হেরে জিতেছিলেন রৌপ্য। সেই চেরনোভা নিষিদ্ধ ড্রাগ নেয়ার অপরাধে দোষী প্রমাণিত হয়েছেন। গত বছর ২৯ নবেম্বর ক্রীড়া সালিশ-নিষ্পত্তি আদালত (সিএএস) তাতিয়ানার স্বর্ণপদক বাতিল করে জেসিকাকে দেয়ার রায় ঘোষণা করে। দেগুর ওই প্রতিযোগিতায় ১২৯ পয়েন্ট পিছিয়ে ছিলেন জেসিকা। হেপ্টাথলনের ৭ ইভেন্টের ৫টিতেই তাতিয়ানাকে পরাজিত করেছিলেন এ ব্রিটিশ তারকা। কিন্তু জ্যাভেলিনে একেবারেই বিপর্যস্ত ছিলেন জেসিকা। তারচেয়ে ২৫১ পয়েন্ট এগিয়ে থাকেন তাতিয়ানা।

আর তাতে করেই সার্বিক পয়েন্টে এগিয়ে থেকে স্বর্ণ জয় করেন এ রাশিয়ান তরুণী। কিন্তু তাতিয়ানার রক্তে নিষিদ্ধ স্টেরয়েড পাওয়ার জন্য তার পদক ছিনিয়ে নেয়া হলো। ফলে জেসিকা স্বর্ণ, যুক্তরাষ্ট্রের কারা গুচার রৌপ্য জয় করবেন। ২০০৭ বিশ্ব আসরে রৌপ্যজয়ী তুরস্কের এলভান এ্যাবিলিগেসিও ডোপ টেস্টে পজিটিভ হয়েছেন। ফলে তার পদকও কেড়ে নেয়া হচ্ছে।