[ আরও খবর ] 11/04/2018
 
ভবন নির্মাণে ২০০ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন
বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) নিজস্ব ভবন নির্মাণ প্রকল্প অনুমোদন করেছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। গতকাল রাজধানীর আগারগাঁওয়ের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া হয়। ফলে ২০০২ সালে ৩১ জানুয়ারিতে প্রতিষ্ঠিত বিটিআরসি ১৭ বছর পর তাদের নিজস্ব ঠিকানা খুঁজে পেল। প্রকল্পের বাস্তবায়নকাল ধরা হয়েছে চলতি বছরের জুন থেকে ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত।

বাংলাদেশে টেলিযোগাযোগ সেবা নিশ্চিতকরণ, সরকারি ও বেসরকারি টেলিকম প্রতিষ্ঠানের মেলবন্ধনের লক্ষ্যে এক ছাদের নিচে আসতে বিটিআরসির ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। ইতোমধ্যে ২৮ লাখ ৩০ হাজার টাকা খরচ করে ভবন নির্মাণের কাঠামোগত ডিজাইন তৈরির কাজ শেষ করেছে বিটিআরসি। প্রকল্পের অধীনে আগারগাঁওয়ে প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব জমিতে ২০০ কোটি টাকা ব্যয়ে ১৩তলা ভবন নির্মাণ করা হবে। এর আটটি ফ্লোর বিটিআরসির কার্যক্রমের জন্য ব্যবহার করা হবে, আর দ্বিতীয় থেকে পঞ্চম তলা পর্যন্ত চারটি ফ্লোর ভাড়া দেওয়া হবেÑ যেখান থেকে একটা বড় অঙ্কের অর্থ বিটিআরসি আয় করতে পারবে বলে প্রকল্পে বলা হয়।

বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ এ বিষয়ে বলেন, প্রকল্প অনুমোদন হওয়ায় ভবনের নির্মাণকাজ দ্রুত শুরু করা হবে। নিজস্ব ভবন হয়ে গেলে বিআরটিসি প্রতিমাসের অফিস ভাড়ার বড় খরচ বাঁচাতে পারবে। সেই সঙ্গে অফিসের অতিরিক্ত অংশ ভাড়া দিয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থ আদায় করে সরকারের তহবিলে জমা দিতে পারবে। নিজস্ব আধুনিক ভবন নির্মাণের ফলে সংস্থাটির মর্যাদাও বৃদ্ধি পাবে।

বিটিআরসি সূত্রে জানা যায়, কার্যালয়ের বাড়িভাড়া পৌনঃপুনিক হারে বেড়ে যাওয়ায় ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত বিটিআরসির ১৬৬তম কমিশনসভায় এক বছরের মধ্যে অন্য কোনো ভবনে কার্যালয় স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। একই সঙ্গে নির্দেশনা দেওয়া হয় নিজস্ব ভবন নির্মাণেরও।

এ পরিপ্রেক্ষিতে বিটিআরসি শুধু নিজেদের প্রধান কার্যালয়ের কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে ভবন নির্মাণে প্রাথমিক অবস্থায় ২২১ কোটি টাকার ডিপিপি তৈরি করে। সর্বশেষ সংশোধিত ডিপিপিতে আগারগাঁও এলাকায় ১৪ তলার পরিবর্তে ১৩ তলা ভবন নির্মাণের জন্য সিভিল এভিয়েশনের অনুমোদন মেলে। সে অনুযায়ী ডিপিপিতে সংশোধন আনা হয়।